Books

কাসাসুল আম্বিয়া Pdf Download (full)

kasasul ambia pdf book bangla review:

আল্লাহ তায়ালা আসমান-জমিন, সৌরজগৎ, আত্মার জগত, বেহেশত দোযখ, ফেরেস্তা, জ্বীন-ইনসানসহ গোটা মাখলুকাত অর্থাৎ জীব-জস্ত্ু কীট-পতঙ্গ এবং সকল কিছুরই স্রষ্টা । তিনি মানুষের ভাগ্যের নিয়ন্ত্রক । তিনি সকল জীবের পালনকর্তা ও সংহারকর্তা । তিনি শেষ দিবসের বিচারক এবং মানুষের ভাল মন্দের প্রতিফল দিবেন । তিনি আদি স্রষ্টা, তিনি পুনরুথান দিবসে জ্বীন ও ইনসান উভয় জাতীর সঙ্গে প্রকাশ্যে সাক্ষাৎ দিবেন। আর মানুষ তখনই পুরোপুরি উপলব্ধি করতে পারবেন তাহাদের ত্রষ্টা যেমনই মহান তেমনি কঠোর। তিনি মানুষের মাবুদ, তিনি স্তস্তবিহীন আসমান মাথার উপরে রেখেছেন ভাসমান।

তিনি ভূমিকে বিছানার আকারে সমতল করে সাজিয়ে পানি দ্বারা সিক্ত করে রেখেছেন যাহার বদৌলতে জমিতে উদ্ভিদসমূহ জীবের আহারের সংস্থান করতে পারে এবং আকাশকে মেঘমালা দ্বারা গঠন করেছেন যাহা দ্বারা ভূমির উপর পানি বর্ষিত হয়। তিনি আল-ইলাহী অর্থাৎ সর্বময় কর্তা ও মাবুদ । আল-ইলাহের সম্মিলিত শব্দে পরিচিত তিনিই “আল্লাহ।”  ইসুলাম  সালাম শব্দ থেকে ইসলামের উৎপত্তি। সালাম অর্থ শান্তি । এ বিশ্বজগত আপনা আপনিই সৃষ্টি হয়নি বরং এর অস্তিত্বের পিছনে কাজ করেছে এক মহাশক্তি। সে ক্ষমতাবান সত্তার নিরংকুশ সার্বভৌমত্ব উপর অদৃশ্যভাবে বিশ্বাস স্থাপন,করাই হচ্ছে ঈমান। আর বিশ্বাস অনুযারী জীবন গঠনকে বলা হয় ইসলাম। পৃথিবীর বুকে যত রকম ধর্ম রয়েছে তার প্রত্যেকটির নামকরণ হয়েছে ব্যক্তি বিশেষের নামে । যেমন মহাত্মা বুদ্ধের নামে বুদ্ধধর্ম।

ঈসায়ী ধর্মের নাম হয়েছে হযরত ঈসা (আঃ)-এর নামে। দুনিয়ার আরও যে সকল ধর্ম রয়েছে তারও নামকরণ হয়েছে এমনিভাবে । কিন্তু ইসলাম এমন একটি ধর্ম যা কোন ব্যক্তি বা জাতির মধ্যে সীমাবদ্ধ নয় । এটি প্রত্যেকের মাঝে বিস্তৃত। যে কোন যুগের যে কোন লোকই সৎপথে চললে সেই-ই শান্তির পতাকার নীচে আশ্রয় পাবে। আর যারাই শান্তির আশ্রয় পায় ও নীড়ে বাস করে তারাই মুসলমান।  নবী পরিচিতি  আল্লাহ ধরাপৃষ্ঠে মানুষ সৃষ্টি.করার পরে তাদের সুশৃঙ্খল মত চলার জন্য এবং ্রষ্টাকে জানার জন্য তারই বান্দাগণের মধ্যে বিশেষ মান মর্যাদা ও কিছু অলৌকিকতা দানে কিছু মানবদের পথ প্রদর্শক হিসেবে মনোনীত করেছেন। তাদেরকে পৃথিবীর মানুষের জন্য প্রেরীত পুরুষ হিসেবে যুগে যুগে বিভিন্ন কউমের নিকট প্রেরণ করেছেন তীরাই নবী বা রাসূল । মহানবী হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা (সাঃ) নবীকুলের শ্রেষ্ঠ নবী। তিনি বিশ্বনবী বা আখেরী নবী । তীর উপরেই মহান আল্লাহ্‌ ৩০ পারা (এঁশীবাণী) কোরআন অবতীর্ণ করেছেন মানব জাতির পথপ্রদর্শক হিসেবে । তারপরে আর কোন নবী আসবেনা । নবুয্যাতের সিলসিলা এখানেই সমাপ্ত।

নবী করীমের তা”্রীফ:

দুনিয়ার এ ভাল ও মন্দের খেলার মধ্যে আসল ও মূল ব্যাপার কিন্তু এ যে, আল্লাহ তীর প্রিয় বান্দা ভাল বা সৎপথ ধরে চলুক সব সময় এ কামনা করেন ।

কাসাসুল আম্বিয়া Pdf Download (শীঘ্রই আসছে)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Content is protected !!